• ঢাকা
  • শুক্রবার, ৬ আশ্বিন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ; ২২ সেপ্টেম্বর, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ

Advertise your products here

Advertise your products here

ঢাকা  শুক্রবার, ৬ আশ্বিন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ;   ২২ সেপ্টেম্বর, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ

গাইবান্ধার ফাঁসির পলাতক আসামি খোকা রাজাকার ঢাকায় আটক

শাহীনুর ইসলাম নয়ন
Daily J.B 24 ; প্রকাশিত: শুক্রবার, ১৭ ফেরুয়ারী, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ, ০৪:৪৩ পিএম
গাইবান্ধা,  ফাঁসির পলাতক আসামি, খোকা রাজাকার, ঢাকায় আটক

 

একাত্তরের মানবতাবিরোধী অপরাধে মৃত্যুদন্ডাদেশপ্রাপ্ত পলাতক যুদ্ধাপরাধী মোঃ জাছিজার রহমান ওরফে খোকা‘কে রাজধানী  ঢাকার মোহাম্মদপুর এলাকা থেকে গ্রেফতার করেছে র‍্যাব ২।

জানা যায়, ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর সহযোগী হিসেবে যুদ্ধাপরাধী মোঃ জাছিজার রহমান ওরফে খোকা সহ রাজাকার বাহিনীর অন্যান্য সদস্যরা একাত্তর সালে গাইবান্ধা সদরে হত্যা-গণহত্যা, ধর্ষণ, আটক, অপহরণ, নির্যাতন, বাড়িঘরে হামলা, লুটপাট-অগ্নিসংযোগ, ভয়-ভীতি এবং আতঙ্ক ছড়িয়ে হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকদের ধর্মান্তর ও দেশান্তরে বাধ্য করাসহ বিভিন্ন মানবতাবিরোধী কাজ করে। রাজাকার বাহিনীর সক্রিয় সদস্য হিসেবে ধৃত আসামী মোঃ জাছিজার রহমান ওরফে খোকা উপরোউল্লেখিত মানবতাবিরোধী কাজে সরাসরি অভিযুক্ত। 

 

এছাড়াও খোকাসহ অন্যান্য যুদ্ধাপরাধীরা যুদ্ধকালীন সময়ে রাজাকার, আলবদর এবং পিস কমিটির সক্রিয় সদস্য ছিলেন। এই রাজাকাররা একাত্তরের ১৮ অক্টোবর পাকিস্তানিদের নিয়ে গাইবান্ধার সদর এলাকার সাহাপাড়া ইউনিয়নের নান্দিনা গ্রামসহ মোট ০৮ টি গ্রামের ১৪ জন নিরীহ মানুষকে মেরে ফেলে এবং মুক্তিযোদ্ধা ওমর ফারুক, ইসলাম উদ্দিন ও নবীর হোসেনসহ ০৭ জন মুক্তিযোদ্ধাকে ধরে নিয়ে গিয়ে হত্যা করেছে। এই রাজাকাররা মোট ২১ জনকে হত্যা, শতাধিক বাড়ি-ঘর লুটপাটের পর অগ্নিসংযোগ এবং কয়েকটি গ্রামের সাধারণ মানুষের উপর নৃশংসভাবে হামলা চালায়।

 

আর জানা যায়, রাজাকাররা সাহাপাড়া ইউনিয়নের তিন থেকে চারশত সংখ্যালঘুকে দেশ ত্যাগ করতে বাধ্য করে। উক্ত ঘটনায় ২০০৯ সালে হত্যা-গণহত্যা, ধর্ষণ, আটক, অপহরণ, নির্যাতন, বাড়িঘরে হামলা, লুটপাট-অগ্নিসংযোগ, ভয়-ভীতি এবং আতঙ্ক ছড়িয়ে হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকদের ধর্মান্তর ও দেশান্তরে বাধ্য করাসহ বিভিন্ন মানবতা বিরোধী কাজে জড়িত থাকার অপরাধে আটককৃত আসামী মোঃ জাছিজার রহমান ওরফে খোকা ও তার বাবাসহ ০৬ জনের বিরুদ্ধে মামলা রুজু হয়। পরবর্তীতে বিজ্ঞ আদালতের বিচারক মামলাটি আমলে নিয়ে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে পাঠানোর আদেশ দেন। উক্ত আদেশের প্রেক্ষিতে ২০১৭ সালে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে কর্তৃক একটি মামলা যার কমপে­ইন্ট রেজিঃ ৫৮, তারিখ ১২/১০/২০১৫ইং, আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১ (বাংলাদেশ) মামলা নং-০২/২০১৭ রুজু হয়। আসামির বিরুদ্ধে আনিত সকল অভিযোগ সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণিত হওয়ায় বিজ্ঞ ট্রাইব্যুনাল মোঃ জাছিজার রহমান ওরফে  খোকার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন।

 

বিজ্ঞ ট্রাইব্যুনাল দীর্ঘ বিচারিক কার্যক্রম শেষে গত ১৫/১০/২০১৯ ইং তারিখ মোঃ জাছিজার রহমান ওরফে খোকা‘কে মৃত্যুদন্ডের আদেশ প্রদান করেন। র‍্যাব -২ বর্ণিত মানবতাবিরোধী অপরাধে দন্ডিত পলাতক যুদ্ধাপরাধীকে গ্রেফতারে গোয়েন্দা নজরদারী বৃদ্ধি করে বলে জানা যায়।       


 
এদিকে, র‍্যাব -২ এর নিজ গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে বৃহস্পতিবার রাতে অভিযান পরিচালনা করে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১ (বাংলাদেশ) কর্তৃক মৃত্যুদন্ড সাজাপ্রাপ্ত যুদ্ধাপরাধী মোঃ জাছিজার রহমান ওরফে খোকাকে দীর্ঘ ১৪ বৎসর পলাতক থাকার পর  রাজধানী ঢাকার মোহাম্মদপুর এলাকা থেকে গ্রেফতার করা হয়। আটককৃত খোকা গাইবান্ধা সদরের মৃত মোঃ আব্দুল জব্বারের ছেলে।    

জানা যায়, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতারকৃত আসামি মোঃ জাছিজার রহমান খোকা জানায় যে, ২০১৬ সাল পর্যন্ত জামিনে থাকার পর আদালত কর্তৃক জামিন নামঞ্জুর হলে তখন সে আত্মগোপনে চলে যায়। সে বিভিন্ন সময় ঢাকা মহানগরীর বিভিন্ন এলাকায় আত্মগোপনে ছিল। আইন-শৃক্সখলা বাহিনী কর্তৃক গ্রেফতার এড়াতে সে নিয়মিত বাসা পরিবর্তন করত। তার ছেলেরা আর্থিকভাবে স্বচ্ছল হওয়ায় তার প্রয়োজনীয় চাহিদা পূরণের জন্য তারা নিয়মিত অর্থ প্রদান করত। এভাবেই সে পলাতক জীবনযাপন করে আসছিল।

 

আরো জানা যায়, গ্রেফতারকৃত আসামী মোঃ জাছিজার রহমান খোকা ১৯৫৪ সালে ২২ এপ্রিল জন্ম গ্রহণ করে। ১৯৬৮ সালে গাইবান্ধার খোদ্দকোমরপুর হাই স্কুল হতে এসএসসি পাস করেন। তার বাবা যুদ্ধের সময় গাইবান্ধা ০৪নং সাহাপাড়া ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডের চেয়ারম্যান ছিলেন। যুদ্ধের সময় তিনি রাজাকার বাহিনীতে যোগ দেন এবং পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীকে বিভিন্ন কাজে সহায়তা করেন। অভিযুক্ত মোঃ জাছিজার রহমান খোকা গাইবান্ধা অবস্থানের পর পাকিস্তানিদের পক্ষ নিয়ে মুক্তিযুদ্ধের সময় মানবতাবিরোধী অপরাধী হিসেবে জঘন্য অপরাধ সংঘটনে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করে। ১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় গাইবান্ধার সদর থানা এলাকায় হত্যা-গণহত্যা, ধর্ষণ, আটক, অপহরণ, নির্যাতন, বাড়িঘরে হামলা, লুটপাট-অগ্নিসংযোগ, ভয়-ভীতি এবং আতঙ্ক ছড়িয়ে হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকদের ধর্মান্তর ও দেশান্তরে বাধ্য করাসহ বিভিন্ন মানবতাবিরোধী অপরাধে জড়িত ছিলেন।     

গ্রেফতারকৃত আসামীর বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে বলে র‍্যাবের পক্ষ থেকে জানা গেছে।

 

 

Daily J.B 24 / নিউজ ডেস্ক/শাহীনুর ইসলাম নয়নঃ

অপরাধ বিভাগের জনপ্রিয় সংবাদ