• ঢাকা
  • রবিবার, ২৩ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ; ০৫ ফেরুয়ারী, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ

Advertise your products here

জঙ্গিদল স্পর্শকাতর অনেক স্থানে পৌছে গেছে! প্রধানমন্ত্রীর নিরাপত্তা জোরদার করুন।

তৈমুর মল্লিক
জয় বাংলা ২৪ ; প্রকাশিত: রবিবার, ২০ নভেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ০৭:২৮ পিএম
জঙ্গিদল, জঙ্গি,  প্রধানমন্ত্রীর নিরাপত্তা জোরদার করুন, আইন আদালত

আবু সিদ্দিক ও মঈনুল জেএমবি এর সক্রিয় জঙ্গি। তাদের ফাঁসির হুকুম দিয়েছিলো আইন। অপরাধ ছিলো, মানুষ হত্যা।  পুলিশের চোখে স্প্রে প্রয়োগ করে নিম্ন আদালত থেকে পালিয়ে গেলো তারা। তাদের বহন করতে অপেক্ষায় ছিলো মটর বাইক নিয়ে অন্য জঙ্গিদল।  


মনে হলো কোন হিন্দি ছবির শুটিং হয়ে গেলো। নিমিষেই বাতাসে মিলিয়ে গেলো তারা। বিষয়টি কত সহজ তাইনা? 


প্রযোজক টাকা বিনিয়োগ করেছে। পরিচালক টেলিভিশন সেটের সামনে বসে একশান বলে দিলো। অভিনেতারা চমৎকার একটি পারফর্ম করে ছবি হিট বানিয়ে দিলো।  


কমিউনিকেশন বলতে একটি শব্দ আছে। যেটা না থাকলে যুদ্ধজয় করা সম্ভব নয়। এই একশান মুভিতে কমিউনিকেশন সিস্টেমের সাথে নিম্ন আদালতের রাস্তা থেকে শুরু করে আদালত পর্যন্ত কারা যুক্ত ছিলো, সিসি ক্যামেরা ভিডিও ফুটেজ পর্যালোচনা এক্সপার্ট বাংলাদেশে আছে কিনা জানিনা, যদি থাকে তাহলে এই সকল রাস্তা ধরে কারা কমিউনিকেশন এর সাথে জড়িত ছিল সেটা বের করা কি খুব মুশকিল?  যদি মুশকিল হয় তাহলে স্বীকার করুন আইসিটি বিভাগ, দীর্ঘ এই ১৫ বছর জাতির সাথে গাদ্দারি করেছেন আপনারা।  


আসামিতো চেনাই, নতুন সিস্টেমে কারা তাদের সাহায্যকারী সেটা নিশ্চিত কতটা জরুরি সেটা নিশ্চই এখন সরকার হাড়ে হাড়ে উপলব্ধি করতে পেরেছে। আর তাইতো তাদের ধরিয়ে দিতে পারলে জনপ্রতি ১০ লক্ষ করে পাবে, যে ধরিয়ে দেবে। সারাদেশে রেড এলার্ট জারি। সীমান্ত সীল করে দেয়া হয়েছে। 


নিম্ন আদালত তবে কি অরক্ষিত?  যারা সেখানে দায়িত্বরত সবার কেন যেন ক্লাইন্ট ধরার পিছনেই সময় যায়। নিরাপত্তা বলতে কোন কোন ক্ষেত্রকে প্রাধান্য দিতে হয় সেদিকে ভ্রুক্ষেপও নেই। আদালত প্রাঙ্গণে পুলিশদের দেখলে মনে হয় দুনিয়াতে অপেশাদার পুলিশ যদি থাকে সেটা আদালত প্রাঙ্গণেই পোষ্টিং হয়েছে।  
ভয়টা হলো মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে। তার চলাচল ও অবস্থানের এলাকায় কারা অবস্থান করছে?  কতটা নিরাপদ তিনি।  বিষয়গুলো একজন সাধারণ নাগরিক হিসাবে জানার অধিকার আমাদের আছে। আমাদের প্রধানমন্ত্রীর নিরাপত্তা নিয়ে আমরা চিন্তিত। তার নিরাপত্তার জন্য যে কোন পদক্ষেপ, সেটা যতো ব্যয় সম্পন্ন হোক সেটাই গ্রহন করতে হবে।  

বিএনপি, জামায়াত নিশ্চিত তাদের এই ফকির ফকির সমাবেশে কিছুই হবে না। আর তাই এখনই সময় তাদের জন্য জঙ্গি তৎপরতায় মন দেয়া। নিম্ন আদালত হতে জঙ্গিদের সহায়তায় ফাঁসির আসামি জঙ্গি পালিয়ে যাওয়া, এবং আদালতেই দায়িত্বরত কেউ না কেউ পালিয়ে যেতে সহায়তা করা, (যদিও এসব কাজে একক ভাবে সহায়তা হলে কাজ সঠিক ভাবে হয়না) এসবই তারই ইংগিত।  


দিনে দিনে এরব্যাপ্তি দিনে দিনে বাড়বে। তবে তার আগে তারা চাইবে ফরমেশন প্রস্তুত করতে। নিম্ন আদালত হতে জঙ্গি পালিয়ে যাওয়া ফরমেশন প্রস্তুতের ইংগিত দেয়।  


মোঃ তৈমুর মল্লিক 

জয় বাংলা ২৪ / তৈমুর মল্লিক

অপরাধ বিভাগের জনপ্রিয় সংবাদ